বগুড়ার শিবগঞ্জ উপজেলায় গৃহবধূ রওশন আরা (৫০) হত্যার ঘটনায় গ্রেপ্তার হওয়া তার স্বামী শাহ আলম পুলিশকে চাঞ্চল্যকর তথ্য দিয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার গ্রেপ্তার হওয়ার পর আজ বুধবার তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করে এসব তথ্য জানতে পেরেছে পুলিশ। পরে তাকে আদালতের মাধ্যমে বগুড়া কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে।

গত ২৫ আগস্ট শিবগঞ্জের রায়নগর ইউনিয়নের অনন্তবালার আকন্দপাড়া গ্রামে খুন হন রওশন আরা। হত্যার পর তার স্বামী পুলিশকে জানায় যে, তার বাড়ি থেকে নগদ টাকা ও সোনার অলঙ্কার কে বা কারা চুরি করে নিয়ে গেছে এবং তার স্ত্রীকে খুন করে রেখে পালিয়ে গেছে। কিন্তু কথায় সন্দেহ হওয়ায় পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করে।

জানা গেছে, রায়নগর ইউনিয়নের অনন্তবালার আকন্দপাড়া গ্রামের কৃষক শাহ আলম ওরফে চাঁন মিয়ার স্ত্রী রওশন আরা। তাদের সংসারে একমাত্র ছেলে ছাব্বির হোসেন দেশের বাইরে থাকেন, মেয়েরও বিয়ে হয়েছে। মেয়েকে বিয়ে দেওয়ার পর থেকে বাড়িতে শাহ আলম ও তার স্ত্রী থাকতেন। কিন্তু গত ২৫ আগস্ট হঠাৎ তাদের বাড়িতে চিৎকার শুনে প্রতিবেশীরা ছুটে আসে এবং সেখানে গিতে তারা রওশন আরার লাশ দেখতে পান। এরপর পুলিশকে খবর দিলে লাশ উদ্ধার করে।

ওই সময় নিহতের স্বামী চাঁন মিয়া পুলিশকে কৌশলে জানান, ঘরে থাকা বাক্সে প্রায় লক্ষাধিক টাকা ও একটি সোনার চেন কে বা কারা নিয়ে গেছে এবং তার স্ত্রীকে খুন করে রেখে যায়। কথার সঙ্গে ঘটনার মিল না থাকায় পুলিশ প্রথমে তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করে। পরে জিজ্ঞাসাবাদে হত্যার দায় স্বীকার করে পুলিশকে তিনি জবানবন্দি দিয়েছেন।

সেই জবানবন্দিতে চাঁন মিয়া জানিয়েছেন, তাকে ভাত দিতে দেরি হওয়ায় রেগে গিয়ে তিনি স্ত্রীকে বটি দিয়ে জবাই করে হত্যা করেন।

শিবগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মিজানুর রহমান জানান, জিজ্ঞাসাবাদে স্বামী শাহ আলম নিজেই তার স্ত্রী রওশন আরাকে বটি দিয়ে হত্যার কথা স্বীকার করেছে। নিহতের লাশের পাশ থেকে একটি ধারালো বটিও উদ্ধার করা হয়েছে এবং আসামিকে কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে।

এ হত্যার ঘটনায় গত ২৬ আগস্ট নিহতের বোনের স্বামী আব্দুর রাজ্জাক বাদী হয়ে অজ্ঞাতদের নামে শিবগঞ্জ থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন।

Please follow and like us:
error