ইউসুফ সোহেল: ২২ অক্টোবর গভীর রাত। সিএনজি অটোরিকশায় হাতিরঝিলের একটি পুলিশ চেকপোস্ট অতিক্রম করছিলেন এক তরুণী। হঠাৎ তার বাহন থামান কয়েক পুলিশ সদস্য। এর পর শুরু করেন আপত্তিকর জিজ্ঞাসাবাদ। শুধু তাই নয়, ওই ভিডিওচিত্র তারা আবার তাদের মোবাইল ফোনে ধারণও করেন। উপরন্তু সেই ভিডিও ফুটেজ ছেড়ে দেন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে। তবে শেষরক্ষা হয়নি। ইতোমধ্যে ভাইরাল হওয়া সেই ভিডিওচিত্রের জেরে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে পুলিশের দুই সদস্যকে।ভিডিওতে দেখা যায়, পুলিশ সদস্যরা ওই তরুণীকে ইচ্ছা করেই উত্তেজিত করার চেষ্টা করছেন; নানা আপত্তিকর কথা বলছেন। পুলিশ সদস্যরা মেয়েটিকে বারবার ধমকের সুরে জিজ্ঞেস করছেন এত রাতে তিনি কেন বের হয়েছেন? কোত্থেকে এসেছেন? কোথায় যাবেন?  তাদের প্রশ্নের ধরনটাই ছিল আক্রমণাত্মক, এমনকি আপত্তিকরও। এভাবে চলতে থাকার একপর্যায়ে ক্ষেপে যান ওই তরুণী।তখন তাকে অভদ্র, বেয়াদব ইত্যাদি বলতে থাকেন পুলিশ সদস্যরা। এক পুলিশ সদস্য বলেন, ‘মনে হয় আপনি বিশ্বসুন্দরী, আমি কি আপনার সাথে টাংকি মারছি?’ এ পর্যায়ে মুখে আলো ধরে ভিডিও করতে থাকায় আপত্তি জানান তরুণী। বলেন, ‘আমার ব্যাগ তল্লাশি করুন।’ কিন্তু ব্যাগ তল্লাশি না করেই তাকে ছেড়ে দেন পুলিশ সদস্যরা। ছেড়ে দেওয়ার আগে তাকে এই বলে শাসানো হয় যে, ‘কালকে বুঝবেন।’পুলিশ সদস্যরাই তাদের এই কীর্তি (!) ফেসবুকে ছড়িয়ে দেন। পুরো দৃশ্য দেখে পুলিশের ওই সদস্যদের বিরুদ্ধে অনেকেই নেতিবাচক মন্তব্য করেন। অনেকেই প্রশ্ন রাখেন, একজন নারীর অমতে তার ভিডিও এভাবে ধারণ করা আইনসম্মত কিনা, ফেসবুকে ভিডিওটি প্রচার করা পুলিশের দায়িত্ব কিনাÑ এমন প্রশ্ন তুলেছেন অনেক ফেসবুকার। ভিডিওটি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে প্রচারের কারণে ওই তরুণীর সম্মানহানি করা হয়েছে অভিযোগ তুলে কেউ কেউ সংশ্লিষ্ট পুলিশ সদস্যদের শাস্তিও দাবি করেন।সর্বশেষ সংবাদ, ভিডিওটি পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদেরও দৃষ্টিগোচর হয়েছে। পুলিশের উপরমহল থেকে বলা হয়েছে, বিষয়টি আইনবিরোধী। সঙ্গত কারণেই অনভিপ্রেত এ ঘটনায় ঢাকা মহানগর পুলিশ সদর দপ্তরের পক্ষ থেকে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। জানা গেছে, তদন্তে প্রাথমিকভাবে ঘটনাস্থলে উপস্থিত পাবলিক অর্ডার ম্যানেজমেন্টের (পিএমও) দুই পুলিশ সদস্যকে শনাক্ত করে তাদের সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।এক পুলিশ কর্মকর্তা নিজ ফেসবুক ওয়ালে যা লিখেছেন, তার সারকথা হচ্ছে, পুলিশের চেকপোস্টে গভীর রাতে একজন ভদ্রমহিলার সঙ্গে কিছু পুলিশ সদস্যের ভিডিওসহ কথোপকথন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তাদের নজরে এসেছে। এ নিয়ে অনলাইনে ঘৃণাবোধ না ছড়ানোর জন্য অনুরোধ করা হয়েছে ওই পোস্টে।ঢাকা মহানগর পুলিশের সাইবার ক্রাইমের অতিরিক্ত উপকমিশনার মো. নাজমুল ইসলাম আমাদের সময়কে বলেন, পুলিশ চেকপোস্টে সিএনজি আরোহী এক নারীর সঙ্গে পুলিশের বাদানুবাদের একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হওয়ার ঘটনায় সংশ্লিষ্ট পুলিশ সদস্যদের শনাক্ত করা হয়েছে এবং তাদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণের বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন। অভিযুক্ত দুজনকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। এ ঘটনায় অন্য কারও সম্পৃক্ততা পেলে তাদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সূত্র: আমাদের সময়।

Please follow and like us:
error