নেপালের রাজধানী কাঠমান্ডুর ত্রিভুবন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ইউএস বাংলা এয়ারলাইন্সের ফ্লাইট বিধ্বস্ত হওয়ার ঘটনায় শোক জানিয়েছেন সর্বস্তরের মানুষ। রাজধানীতে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে তারা মোমবাতি জ্বালিয়েছেন, ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানিয়েছেন।

সাইফুল ইসলাম:
নেপালে বিমান বিধ্বস্ত হয়ে নিহতদের স্মরণে আজ বৃহস্পতিবার (১৫ মার্চ) রাষ্ট্রীয় শোক দিবস পালন করা হচ্ছে। বুধবার সরকারের মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে এ বিষয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব শফিউল আলম স্বাক্ষরিত রাষ্ট্রীয় শোক পালনের প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, ‘নেপালের ত্রিভুবন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণের সময় আকস্মিক দুর্ঘটনায় ইউএস বাংলার ফ্লাইটটি বিধ্বস্ত হয়ে মর্মান্তিকভাবে নিহত দেশি-বিদেশি ৫১ জন আরোহীর বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা এবং তাদের শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা ও সহমর্মিতা প্রকাশের লক্ষ্যে ১৫ মার্চ একদিনের রাষ্ট্রীয় শোক পালন করা হবে। এদিন দেশের সব সরকারি, আধা-সরকারি, স্বায়ত্বশাসিত ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠান এবং বিদেশস্থ বাংলাদেশ মিশনসমূহে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত থাকবে।’

faysal

প্রজ্ঞাপনের পর যথাযথভাবে রাষ্ট্রীয় শোক পালনের জন্য দেশের বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও অধিদফতর তাদের অধীনস্থ প্রতিষ্ঠানগুলোতে নির্দেশনা দিয়েছে বলে জানা গেছে। এ বিষয়ে জানতে চাইলে ঢাকা জেলা শিক্ষা অফিসার শাহিন আরা বেগম জানান, এরইমধ্যে প্রাথমিক বিদ্যালয়সহ তার অধীনস্থ প্রতিষ্ঠানগুলোকে রাষ্ট্রীয় শোক পালনের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

সাধারণ নাগরিকদের সঙ্গে এই কর্মসূচিতে শোক জানিয়েছে প্রতিবন্ধী নাগরিক সংগঠন পরিষদ। নিহতদের প্রতি শোক জানিয়ে মুক্ত খবরের বার্তা সম্পাদক কাজী ইমরান মাহমুদ বলেন,আমাদের সহকর্মি শরিয়তপুরের সন্তান ফয়সাল আহমেদ বৈশাখী টেলিভিশনের হয়ে প্রধানমন্ত্রীর সংবাদ সংগ্রহ করতেন ‘আমাদের গনমাধ্যম এর উজ্জল নক্ষত্র সাংবাদিক আহমেদ ফয়সাল এই বিমান দুর্ঘটনায় নিহত হয়েছেন। আমরা তার মৃত্যুতে শোকাহত।’

বুধবার প্রধানমন্ত্রীর সভাপতিত্বে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত উড়োজাহাজ দুর্ঘটনায় হতাহতের পর্যালোচনা ও করণীয় নির্ধারণে এক বৈঠকে এসব সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়।

উড়োজাহাজ দুর্ঘটনায় নিহত সাংবাদিক আহমেদ ফয়সাল স্মরণে বৃহস্পতিবার একদিনের কর্মসূচি ঘোষণা করেছে ঢাকা রিপোর্টাস ইউনিটি (ডিআরইউ)।

কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে; কালো ব্যাজ ধারণ ও শোক র‌্যালী। শোক র‌্যালীটি সাড়ে ১১টায় ডিআরইউ চত্তর থেকে জাতীয় প্রেসক্লাবে গিয়ে শেষ হবে।

সোমবার কাঠমান্ডুর ত্রিভুবন বিমানবন্দরে ইউএস বাংলার উড়োজাহাজ বিধ্বস্ত হয়ে ২৮ বাংলাদেশিসহ ৫১ যাত্রী নিহত হয়েছে। আহতরা নেপালের বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

উড়োজাহাজটিতে থাকা ৬৭ যাত্রীর মধ্যে ৩২ জন বাংলাদেশী, ৩৩ জন নেপালি, একজন মালদ্বীপের এবং একজন চীনের নাগরিক। এছাড়াও ৪ জন ক্রু ছিলেন বলে জানিয়েছে ইউএস বাংলা কর্তৃপক্ষ।

দুর্ঘটনায় প্রথমেই মৃত্যু হয় ওই ফ্লাইটের সহকারি পাইলট এবং ইউএস বাংলার প্রথম নারী পাইলট পৃথুলা রশিদের। আহত অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি করা হয় পাইলট ক্যাপ্টেন আবিদকে। পরের দিন সকালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ক্যাপ্টেন আবিদও মারা যান।

Please follow and like us:
error