অনলাইন ডেস্ক
Published 14/09/2017,11:27

স্বাস্থ্যসচেতন এবং ওজন নিয়ন্ত্রণকারীদের মাঝে গ্রিন টি এখন বেশ পরিচিত। বহু গবেষণা এর কার্যকারীতা প্রমাণ করেছে বহুবার। তবে গ্রিন টি’র প্রকৃত উপকার পেতে মেনে চলতে হবে কিছু নিয়ম।

খাদ্য ও পুষ্টিবিষয়ক ওয়েবসাইটে গ্রিন টি নিয়ে প্রকাশিত প্রতিবেদন অবলম্বনে এই চা থেকে উপকার পাওয়ার পন্থা এখানে দেওয়া হল।

যা করা যাবে না

– অনেকেই মনে করেন খাওয়ার পরপরই গ্রিন টি পান করলে জাদুবলে সব ক্যালরি ঝরে যাবে, যা সম্পূর্ণ ভুল ধারণা। খাওয়ার পরপরই খাবারে থাকা আমিষ পুরোপুরি হজম হয় না। তাই এই সময় গ্রিন টি পান করলে হজম প্রক্রিয়া ব্যহত হয়। তাই খাওয়ার পরপর গ্রিন টি পান করা যাবে না।

​- অতিরিক্ত গরম গ্রিন টি পান করলে তার কোনো স্বাদ পাওয়া যায় না। সেই সঙ্গে তাপের কারণে পাকস্থলী ও গলা ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে। গ্রিন টি পান করতে হবে কুসুম গরম।

​- ​চায়ে মধু মিশিয়ে পান করতে পছন্দ করেন অনেকেই। কারণ এটি চিনির স্বাস্থ্যকর বিকল্প এবং সুস্বাদু। তবে ফুটন্ত গ্রিন টিতে মধু যোগ করলে মধুর পুষ্টিগুণ নষ্ট হওয়ার সম্ভাবনা বেশি। তাই চুলা থেকে নামিয়ে চায়ের তাপমাত্রা কুসুম গরম অবস্থায় পৌঁছালে তারপর মধু মেশাতে হবে।

– সকাল বেলা গ্রিন টি খাওয়ার ঠিক আগে কিংবা পরেই ওষুধ খাওয়া উচিত নয়। কেউ আবার গ্রিন টি দিয়েই ওষুধ খান, যা আরও ক্ষতিকর। কারণ ওষুধের রাসায়নিক উপাদান গ্রিন টিয়ের সঙ্গে মিশে অ্যাসিডিটি সৃষ্টি করতে পারে।

​- পানিতে দীর্ঘসময় গ্রিন টিয়ের পাতা ডুবিয়ে রাখলেই তা থেকে বেশি পুষ্টি উপাদান বের হবে এমন ধারণা ভুল। বরং এতে চায়ের স্বাদ নষ্ট হবে, বিষাক্ত হয়েও উঠতে পারে।

– বিভিন্ন ফ্লেইভারযুক্ত গ্রিন টিতে বাজার সয়লাব। বিক্রি বাড়ানোর জন্য কিছু গ্রিন টিতে কৃত্রিম উপায়ে ফ্লেইভার যোগ করা হয়। তাই প্রাকৃতিক গ্রিন টি পান করাই নিরাপদ।

​- গ্রিন টি পান করার সময় তাড়াহুড়ো করলে চলবে না। কারণ দ্রুত চা পান করলে আপনার মস্তিষ্ক চাঙ্গা হবে না, বাড়বে না বিপাক ক্রিয়ার হারও। তাই অফিস যাওয়ার আগে তাড়াহুড়ো করে গ্রিন টি পান না করে অফিসে পৌঁছে সময় নিয়ে পান করা উচিৎ।

​- বেশি উপকারের লোভে কিছু মানুষ দুটি গ্রিন টিয়ের ব্যাগ একসঙ্গে ডুবিয়ে দেন এক কাপ পানিতে। তবে প্রতিনিয়ত দুটি টি ব্যাগ দিয়ে এক কাপ চা পান করলে হজমের সমস্যা ও অ্যাসিডিটি হতে পারে।

যেভাবে মিলবে উপকার

– আমাদের দেশের আবহাওয়ায় গ্রিন টিয়ের ব্যাগ খোলা রাখলে নষ্ট হয়ে যাবে। তাই রাখতে হবে টিন কিংবা চিনামাটির পাত্রে।

– বিপাক প্রক্রিয়ার গতি বাড়াতে প্রতিদিন দুকাপ গ্রিন টি পানের অভ্যাস করা উচিত। আর বিপাকের হার বাড়লে শরীরের কার্যকলাপ বাড়বে, ফলে ক্যালরিও ঝরবে বেশি।

– গ্রিন টি পান করা উচিৎ সকালে। এতে দিনের শুরুটা হবে স্বাস্থ্যকর। ফলে সারাদিন স্বাস্থ্যের দিকে খেয়াল রাখার প্রবণতা বাড়তে পারে।

– গ্রিন টি বানাতে ফোটানো, ফিল্টার করা কিংবা বোতলজাত খনিজ পানি ব্যবহার করা উচিৎ।

Please follow and like us:
error